‘এই ফ্রান্সের মানসিকতা ভিন্ন’

47

২০১৬ ইউরোর ফাইনালে হারা ফ্রান্স দলের মানসিকতার চেয়ে বিশ্বকাপের দলটার মানসিকতা আলাদা বলে মনে করেন দলটির ফরোয়ার্ড অলিভিয়ে জিরুদ।

রাশিয়ায় কোনো গোল না পাওয়া ৩১ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষেও শুরুর একাদশে থাকবেন বলেই ধরা হচ্ছে। চলতি আসরে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে পেরুর বিপক্ষে উসমান দেম্বেলের পরিবর্তে সুযোগ পাওয়ার পর সবগুলো ম্যাচেই শুরুর একাদশে দেখা গেছে তাকে।

রোববার মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত নয়টায় মুখোমুখি হবে দুই দল। নক আউট পর্বে আর্জেন্টিনা, উরুগুয়ে ও বেলজিয়ামকে হারানো ফ্রান্সকেই ফাইনালে ফেভারিট ধরা হচ্ছে।

২০১৬ ইউরোর ফাইনালে পর্তুগালের কাছে ১-০ গোলে হারের পর আরেকটি আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের এমন সুযোগ ফরাসিরা হারাতে চায় না বলে জানান জিরুদ।

“এটা ভিন্ন। (ইউরোর) সেমি-ফাইনালে যখন আমরা জার্মানিকে হারালাম, আমরা একটু বেশিই খুশি ছিলাম। অন্য দিকে বেলজিয়ামের বিপক্ষে এটা আলাদা ছিল।”

“এটা একই রকম অনুভূতি নয়- আমরা জানি, আমাদের এখনও একটা ম্যাচ জিততে হবে। কাজটা শেষ করতে আমাদের মধ্যে সেই সত্যিকারের মনোযোগ আর একাগ্রতা আছে- এ জন্যই এবারের বিষয়টি আলাদা। এখানে পৌঁছাতে আমরা অনেকটা পথ পাড়ি দিয়েছি এবং এখন আমরা এই সুযোগ অপচয় করতে চাই না।”

“আপনি শুধু প্রতিভা দিয়ে একটা বিশ্বকাপ জিততে পারেন না। কেবল প্রতিভাই যথেষ্ট নয়; আপনার দক্ষতা প্রয়োজন। কাজের ৭০ শতাংশ হলো মানসিক দৃঢ়তা। যদি আপনি আপনার সতীর্থদের জন্য কাজ করতে প্রস্তুত থাকেন এবং একে অপরের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়ে কাজ করেন তারপর যে কোনো কিছুই ঘটতে পারে।”

চেলসির এই ফরোয়ার্ডের আশা ফাইনালে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা মিলবে।

“বেলজিয়ামের বিপক্ষে আমার দক্ষতা, ভাগ্য ও গোল করতে দরকার এমন একটা কিছুর অভাব ছিল। কিন্তু আশা করি, ফাইনালে এটা থাকবে।”

“আমার এমন মনে হচ্ছে যে আমি দলের জন্য সবকিছু দিচ্ছি। আর যদি একটা গোল আসেই তবে আশা করি, তা রোববারেই আসবে। কিন্তু যদি আমরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হই এবং আমি গোল না করি, আমি তাতে খুশি।”